বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘদেহী ও খাটো ঘোড়ার সাক্ষাৎ

ঘোড়া একটি খুড়ওয়ালা স্তন্যপায়ী প্রাণী। বিগত ৪৫ থেকে ৫৫  লক্ষ বছর ধরে পৃথিবীতে প্রাণীটির অস্তিত্ত্ব বিদ্যমান। খ্রিষ্টপূর্ব ৪ হাজার থেকে মানুষ ঘোড়াকে ঘরে পোষা শুরু করে। যদিও এদের কিছু পোষ্য দল বুনো ঘোড়ার মত খোলা জায়গায় বা জঙ্গলে বাস করে। ঘোড়া বা ঘোটক দ্রুতগামী চতুষ্পদ জন্তু যার পিঠে চড়া যায়। দ্রুতগামী বলে এর নাম তুরগ, তুরঙ্গম। বিশ্বের নানা দেশে উঁচু ও বড় ঘোড়ার বেশ সমাদর রয়েছে। এমনকি গিনেস রেকর্ডেরও ব্যবস্থা রয়েছে। গিনেস বুক অনুযায়ী সবচেয়ে দীর্ঘদেহী ঘোড়ার নাম ‘বিগ জেক’ এবং এবং সবচেয়ে খাটো ঘোড়ার নাম ‘থুমবেলিনা’।

দীর্ঘদেহী বিগ জেকের উচ্চতা যেখানে ২১০ সেন্টিমিটার যেখানে থুমবেলিনার উচ্চতা মাত্র ১৭.৫ সেন্টিমিটার। সম্প্রতি এই দুই ঘোড়াকে মুখোমুখি করা হয়। তাদের পাশাপাশি রেখে যখন ছবি তোলা হয় তখন দারুণ এক দৃশ্যের অবতারণা ঘটেছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিনে জিলবার্ট পরিবারে বেড়ে উঠেছে বিগ জেক। বর্তমানে বিগ জেকের বয়স ১৭ বছর। জন্মের সময়ই বিগ জেক বেশ বড়সড় হয়েছিল। জন্মের সময়ই তার ওজন হয়েছিল ২৪০ পাউন্ড। তার বয়স যখন ৭/৮ বছর তখনই মনে হচ্ছিল এটি বিশ্বের সব চেয়ে বড় ঘোড়ার রেকর্ড গড়বে। পরে গিনেস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের পর সে স্বীকৃতিও মিলে যায়।

গাড় বাদামী রঙের থুমবেলিনার জন্ম ২০০২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের মিসৌরির একটি ঘোড়ার খামারে। জন্মের সময় সে এতোটাই ছোট হয়েছিল যে অনেকেই একটি ছাগলের বাচ্চা মনে করে ভুল করে বসছিল। জন্মের সময় এটি মাত্র ৬ ইঞ্চি ছিল। এর ছোট আকার নিয়ে মালিক বেশ চিন্তিত থাকতেন। তবে রেকর্ড গড়ায় এখন তিনি বেশ খুশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close